ঢাকা | জুলাই ১৮, ২০২৪ - ৫:৩৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

সংকট মোকাবিলায় প্রতিশ্রুত জ্বালানি সহায়তা কতটা সাহায্য করবে?

  • আপডেট: Sunday, June 25, 2023 - 8:30 pm

মোঃ খায়রুল আলম খানঃ কাতারের আমির তার দেশ থেকে বৃহত্তর এলএনজি সরবরাহের বিষয়ে বাংলাদেশকে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। বাংলাদেশের জন্য এটা একটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ। ২৩ মার্চ, ২০২৩ তারিখে আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি দোহার আমিরি দেওয়ানে এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, আমি আপনাকে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে আমি আমির হিসেবে আপনাকে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেব কারণ আপনি একটি বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ। দুই নেতা জ্বালানি, ব্যবসা, বিনিয়োগ, বাংলাদেশি জনশক্তির পাশাপাশি মুসলিম উম্মাহ এবং বাংলাদেশের উন্নয়নে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার বিভিন্ন বিষয়েও আলোচনা করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘এই বৈঠকটি অত্যন্ত উষ্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে।’

জ্বালানি সম্পর্কে আমির বলেন, কাতার থেকে বাংলাদেশে বৃহত্তর জ্বালানি সরবরাহের বিষয়ে একটি নতুন চুক্তি স্বাক্ষরের আলোচনা কয়েক মাস বাকি। মোমেন বলেন, এই প্রতিশ্রুতি বাংলাদেশের জন্য একটি বড় অর্জন। তিনি আরও বলেন যে, এই নতুন চুক্তি শিগগির স্বাক্ষরিত হতে পারে। বাংলাদেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে চায় কাতার। একই সঙ্গে স্থিতিশীলতার প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আব্দুল রহমান বিন জাসিম আল থানি। এসময় প্রধানমন্ত্রী কাতারের কাছে জ্বালানি সহায়তা চেয়েছেন বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

দোহায় সে সময়  সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে দু’দেশের মধ্যে শক্তিশালী সম্পর্ক গড়ার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন কাতারের প্রধানমন্ত্রী। পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের জন্য জ্বালানি সহযোগিতা আরও বাড়াতে শিগগির চুক্তি করতে কাতার সম্মত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাতারের প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আমরা আপনাদের কাছ থেকে অনেক জ্বালানি ক্রয় করি। আমরা জ্বালানির বিষয়ে কাতারের সহায়তা চাই। এ প্রসঙ্গে তারা (কাতার) অঙ্গীকার করেছে যতটুকু যেভাবে সম্ভব সহায়তা করবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কাতার প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেছেন, কাতারে বাংলাদেশের অনেক লোক কাজ করে। এ বিষয়ে কাতারের প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ মানুষগুলো তাদের সম্পদ। ফুটবল বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পর কাতারে অনেক প্রবাসীর চাকরি হারানোর আশঙ্কার কথা জানিয়ে কাতারের প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনা বলেন, ফুটবল বিশ্বকাপ শেষে চাকরি চলে যাবে, এটা ভেবে অনেকে আতঙ্কিত। এ বিষয়ে আশ্বাস দিয়ে কাতারের প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাঙালিরা এখানেই থাকবে। তারা আমাদের বন্ধু, তারা আমাদের সহযোগী। যতদূর পারি আমাদের দেশে তাদের রাখবো। ড. মোমেন বলেন, এটা (কাতারের প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস) আমাদের প্রবাসীদের জন্য খুব ভালো বিষয়। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরকালীন আবাসস্থল লুসাইল সিটির হোটেল ওয়ালডর্ফ অ্যাস্তোরিয়ায় তার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন কাতারের জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী সাদ বিন শেরিদা আল কাবি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ বৈঠকেও জ্বালানি ইস্যুটি নিয়ে আলাপ হয়েছে। কাতার থেকে জ্বালানি নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

ড. মোমেন বলেন, ২০১৭ সালে কাতার থেকে জ্বালানি নেওয়ার বিষয়ে ১৫ বছর মেয়াদি একটি চুক্তি করে বাংলাদেশ। সেই চুক্তিটি অত্যন্ত সুদূরপ্রসারী ও বুদ্ধিমানের কাজ ছিল। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ২০২৫ সাল থেকে কাতার থেকে আরও জ্বালানি পেতে হলে এখনই চুক্তি করতে হবে। শিগগির এ চুক্তি সই হবে। ২০১৭ সালে স্বাক্ষরিত একটি ১৫ বছরের চুক্তি অনুসারে বাংলাদেশ এখন প্রায় ৪০টি কনটেইনার জ্বালানি আমদানি করছে, যার অর্থ ১.৮-২.৫ এমটিএ। কিন্তু এখন বাংলাদেশ কাতার থেকে এলএনজির বৃহত্তর সরবরাহ চায়।

বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যে শ্রম অভিবাসন (৮ লাখ বাংলাদেশী কর্মী এবং মার্কিন ১.৩ বিলিয়ন রেমিটেন্স), জ্বালানি সহযোগিতা (১৫ বছরের জি-টু-জি এনএলজি চুক্তি), এবং রোহিঙ্গাদের জন্য ক্রমাগত সহায়তাসহ বিভিন্ন দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে অবিরাম সহযোগিতা রয়েছে। এটি দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির অধীনে কাতার এবং ওমান থেকে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস ক্রয় চালিয়ে যাচ্ছে এবং বছরে প্রায় চার মিলিয়ন টন তরলীকৃত গ্যাস আমদানি করে।

কাতারের সাথে চুক্তির মেয়াদ ২০৩২ সালে শেষ হবে এবং ওমানের সাথে ২০২৯ সালে মেয়াদ শেষ হবে। কাতার অন্যতম শীর্ষ জ্বালানি উৎপাদনকারী দেশ। বাংলাদেশ ইতিমধ্যে কাতারের সাথে জি-টু-জি ১৫ বছরের জন্য এলএনজি চুক্তি করেছে। তবে ইউক্রেন সংকট, রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা এবং পরবর্তীকালে জ্বালানি মূল্যবৃদ্ধির ফলে বাংলাদেশে জ্বালানি সংকট দেখা দেয়। স্থানীয় গ্যাসক্ষেত্র থেকে প্রাকৃতিক গ্যাসের উৎপাদন হ্রাস এবং আন্তর্জাতিক বাজারে এলএনজির উচ্চমূল্যের কারণে বাংলাদেশ বর্তমানে প্রাকৃতিক গ্যাসের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মোকাবিলায় লড়াই করছে।

কাতার মধ্যপ্রাচ্যের একটি তেলসমৃদ্ধ দেশ। তার অর্থনীতিকে সমর্থন করার জন্য দেশটি মূলত বিদেশি শ্রমের ওপর নির্ভরশীল: কাতারের ৮৯.৫ শতাংশ বাসিন্দা বিদেশি নাগরিক। বিপরীতে, বাংলাদেশ বিশ্বের বৃহত্তম শ্রম রপ্তানিকারক দেশগুলোর একটি। প্রায় ৪,০০,০০০ বাংলাদেশী প্রবাসী সেখানে কাজ করছেন, যা কাতারের মোট বাসিন্দার ১২.৫ শতাংশ। তেলসমৃদ্ধ দেশটি নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের প্রবাসী ও অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ।

২০১৭ সালের জুন মাসে, বাংলাদেশ পরবর্তী ১৫ বছরের জন্য বার্ষিক ২.৫ মিলিয়ন টন এলএনজি পাওয়ার জন্য কাতারের কোম্পানি রাসগ্যাসের সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। এটা লক্ষ্য করা গুরুত্বপূর্ণ যে গত পাঁচ বছরে কাতার থেকে রেমিট্যান্সপ্রবাহ মার্কিন ১ বিলিয়ন ছুঁয়েছে।

বাংলাদেশ যেহেতু জ্বালানি সংকটে ভুগছে, কাতার তার ক্রমবর্ধমান জ্বালানির চাহিদা মেটাতে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়াবে। কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির কাছে বছরে আরও এক মিলিয়ন টন তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী রোববার (৫ মার্চ) কাতারের দোহায় কাতার ন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে (কিউএনসিসি) স্বল্পোন্নত দেশগুলোর ওপর জাতিসংঘের পঞ্চম সম্মেলনের ফাঁকে দেশটির আমিরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

বাংলাদেশ এই জ্বালানি চায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে কাতারের আমির বাংলাদেশকে জ্বালানি সরবরাহের আশ্বাস দিয়েছেন। বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাতারের আমিরকে বলেছেন, ইউক্রেনে যুদ্ধের পর আমাদের বড় জ্বালানি সমস্যা রয়েছে। আমরা আরও জ্বালানি চাই। এখন বাংলাদেশ কাতার থেকে বছরে প্রায় ৪০টি কনটেইনার জ্বালানি আমদানি করে, অর্থাৎ ১.৮ থেকে ২৫ মিলিয়ন টন। আমরা যা নেব তা নবায়ন করব। এছাড়াও আমরা আরও এলএনজি চাই।

আবদুল মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে আন্তরিকভাবে সাড়া দিয়ে কাতারের আমির বাংলাদেশ আরও কতটা চায় জানতে চান। আমরা বলেছি, আমরা আরও ১ মিলিয়ন টন চাই, আরও ১৬-১৭ কনটেইনার চাই। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অনুরোধের পর কাতারের আমির প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আমি আজ আমাদের জ্বালানিমন্ত্রীকে নির্দেশ দিচ্ছি। আপনি (শেখ হাসিনা) দেশে ফেরার আগে আমি আপনার সাথে দেখা করব এবং এর মধ্যে করণীয় সম্পর্কে নির্দেশনা দেব। আমি আপনাদের সাহায্য করতে চাই। কাতার সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

বাংলাদেশ ও কাতার সম্প্রতি তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার করেছে। কাতারের ব্যবসায়ী ও কর্মকর্তারা ইতোমধ্যে বাংলাদেশের জ্বালানি খাত, এলপিজি স্টোরেজ টার্মিনাল, বিদ্যুৎ ও অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছেন। বাংলাদেশ ইতিমধ্যে জরুরি এলএনজির জন্য কাতারকে অনুসরণ করেছে এবং তুলনামূলক কম দামে সরবরাহের জন্য ঋণ প্রসারিত করেছে। এলএনজির বর্ধিত ঋণ এবং জরুরি সরবরাহ বাংলাদেশকে জ্বালানি নিরাপত্তায় সহায়তা করবে।

আমদানি করা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাসের ওপর নির্ভরশীল বাংলাদেশ সাম্প্রতিক মাসগুলোতে জ্বালানি সংকটের সঙ্গে লড়াই করছে। বাংলাদেশ যদি বিলম্বিত অর্থপ্রদানের ভিত্তিতে কাতারের এলএনজি পেতে পারে, তবে এটি বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকে সহজ করবে এবং অন্য প্রয়োজনীয় আমদানি ক্রয়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সাহায্য করবে, যার জন্য তাত্ক্ষণিক অর্থপ্রদান প্রয়োজন। কাতার শোধনাগার খাতে সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করতে পারে। ওআইসি সদস্যপদ এবং মুসলিম পরিচয় বাংলাদেশকে এক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।