ঢাকা | জুলাই ১৮, ২০২৪ - ৪:৩৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

বাইডেনের যুদ্ধবিরতি প্রস্তাব ও হামাস নেতার বক্তব্য

  • আপডেট: Thursday, June 6, 2024 - 6:10 pm

মো: খায়রুল আলম খান : গাজাভিত্তিক ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের সিনিয়র কর্মকর্তা সামি আবু জুহরি বলেছেন, তারা ‌’বাইডেনের আইডিয়ার’ প্রশংসা করলেও বর্তমান যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবটি যুদ্ধ বন্ধের জন্য দৃঢ় কোনো প্রতিশ্রুতি দেয়নি।

আবু জুহরি বলেন, ‘ইসরাইলি নথিপত্রগুলো মূলত অন্তহীন আলোচনার কথা বলে। এতে চূড়ান্ত কোনো সময়সীমা নেই। আর এতে দখলদার বাহিনী তার পণবন্দীদের ফিরে পাবে এবং যুদ্ধ আবার শুরুর কথা বলা হয়েছে। আমরা মধ্যস্ততাকারীদের বলেছি যে এ ধরনের কাগজ আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।
তিনি বলেন, ‘মার্কিন নথিতে আগ্রাসন বন্ধ কিংবা ইসরাইলি বাহিনী প্রত্যাহারের কোনো উল্লেখ নেই।’

যুদ্ধবিরতি নিয়ে আবারো আলোচনা শুরু এর মধ্যেই ইসরাইল গাজার মধ্যাঞ্চলে ব্যাপক বোমা হামলা চালিয়েছে।
এদিকে যুদ্ধবিরতি ও পণবন্দী মুক্তি নিশ্চিতে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে আন্তর্জাতিক আলোচনা পুনরায় শুরু হয়েছে। ইসরাইল বুধবার রাতভর মধ্য গাজায় বোমা হামলা চালানোর পর ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা বেশ কিছু হতাহতের খবর জানিয়েছে। গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফাতেও ইসরাইল বোমা ও গোলা হামলা জোরদার করেছে। এরআগে ইসরাইলি বাহিনী বুরেজ ও পূর্বাঞ্চলীয় দেইর আল বালাহতে সুনির্দিষ্ট অভিযান চালানোর ঘোষণা দেয়। ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আল-মাগহাজি ক্যাম্পের কাছে ইসরাইলি হামলায় ১১ জন এবং দেইর আল বালাহর কাছে দু’জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন।

দাতব্য সংস্থা ‘মেডিসিনস সান্স ফ্রন্টিয়ার্স’ বলেছে, মঙ্গলবার থেকে এ পর্যন্ত মধ্য গাজায় ইসরাইলের ব্যাপক বোমা হামলায় অন্তত ৭০ জন নিহত এবং তিন শ’র বেশি আহত লোককে আল আকসা হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। গাজায় সংস্থাটির চিকিৎসা উপদেষ্টা পরিস্থিতি ভয়াবহ উল্লেখ করে বলেছেন, হাসপাতালের মেঝেতে ও সামনে আহত লোকজন পড়ে আছে। প্লাস্টিকের ব্যাগে করে লাশ আনা হচ্ছে।

এদিকে ছয় সপ্তাহের জন্যে যুদ্ধ বন্ধ, ফিলিস্তিনি বন্দীদের ছেড়ে দেয়ার বিনিময়ে পণবন্দী মুক্তি এবং ত্রাণ সহায়তা জোরদারের তিন ধাপের যে ইসরাইলি পরিকল্পনা মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তুলে ধরেছেন তাতে সমর্থন দিচ্ছে জি-৭ ভুক্তসহ কয়েকটি আরব দেশ। যদিও হামাসের দাবি স্থায়ী যুদ্ধবিরতি এবং গাজা থেকে ইসরাইলি বাহিনীর সম্পূর্ণ প্রত্যাহার। হামাসের এ দাবি ইসরাইল স্পষ্টতই প্রত্যাখ্যান করেছে।
আলোচনার সাথে সম্পর্কিত ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি বলেছে, কাতারের দোহায় বুধবার হামাসের সাথে দেশটির প্রধানমন্ত্রী, মিসরের গোয়েন্দা প্রধান যুদ্ধবিরতি ও পণবন্দী মুক্তি নিয়ে আলোচনা করেন।

তবে বৈরুতে মঙ্গলবার হামাসের এক সিনিয়র কর্মকর্তা ইসরাইলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেছেন, তারা অন্তহীন আলোচনা চায়। তিনি তার গ্রুপের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে বলেছেন, স্থায়ী যুদ্ধবিরতির শর্ত ছাড়া কোনো চুক্তিই মেনে নেয়া হবে না।
উল্লেখ্য, গতবছরের ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনি সংগঠন হামাস ইসরাইলে আকস্মিক বড় ধরনের হামলা চালায়। এর প্রতিশোধ হিসেবে ইসরায়েল গাজায় ভয়াবহ অভিযান শুরু করে এবং তা অব্যাহত রেখেছে।
গাজায় ইসরাইলের অব্যাহত এ হামলায় এ পর্যন্ত ৩৬ হাজার ৫৮৬ ফিলিস্তিনী নিহত হয়েছে। যাদের অধিকাংশ নারী ও শিশু।